উন্নয়নের মহাসড়কে ডিজে ব্যাড

রাজীব জবরজং

প্রকাশিত : জানুয়ারি ১৮, ২০১৮

পুরান ঢাকায় শাকরাইনে ব্যপক চিল-বাদুর মাইরা হাজীর বিরিয়ানি মনে কইরা নিউ স্পেশাল বোম্বাই হাজীর বিরিয়ানি খাইয়া বাসে ভিড় আর রাস্তায় জ্যাম দেইখা ডিজে ব্যাড উন্নয়নের মহাসড়ক ধইরা হাঁইটা মোহাম্মদপুর যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিল।
হাঁটতে হাঁটতে ফুলার রোডে আইসা দেখে ব্যাপক চিল হচ্ছে এখানে। সিনেমার মতো করে প্রেম হচ্ছে। সহিংস প্রেম, প্রেমিকা ছুরি হাতে নিয়া গাইতেছে, এই ছুরির নিশানায় ফুটো হয়ে যাবি/আমার আগুনে দিতেই হবে তোর ঝাঁপ/তুই প্রেম দিবি না/প্রেম দেবে তোর বাপ।
উন্নয়নের মহসড়ক ধইরা চিল করতে করতে ডিজে ব্যাড DJ BAD (Delowar Zahan Bad-rule) ফুলার রোড ছাইড়া আরও কিছুদূর আগাইয়া গেল। মহাসড়কের ডাইনে উন্নয়ন, বামে উন্নয়ন। সে কী উন্নয়ন, আহা! ডিজে ব্যাড পুরাই চিল মুডে কানে বিশাল সাইজের হেডফোন গুঁজে স্লো মোশনে বিটে বিটে মাথা ঝাঁকাতে ঝাঁকাতে হেঁটে যাচ্ছেন। ডিজে ব্যাড পৌছে গেছেন পান্হপথে। সামনে কয়েকটা হাসপাতাল ও একটা বেসরকারি মেডিকেল কলেজ। মেডিকেল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা রাস্তায় বসে বসে চিল করতেছে। এর মধ্যে এক কোট-টাই পরা হাজীসাব আইসা পড়ছে পুরাই শো স্টপারের ঢঙে। হাজী সাবে সময়ের সাথে কিভাবে নিজেকে জানান দিয়ে ডায়লগ দিতে হয়, তার ক্লাস নিচ্ছেন।
‘আমার সাথে আছে সরকার, আমি কিন্তু কাঁচা পাত্তি দিয়া দুধ চা খেয়ে গুলি করে তোদের খুলি উড়িয়ে দোব হুম!’
ডিজে ব্যাড আবার হাঁইটা যাইতে থাকে চিল করতে করতে। উন্নয়নের মহাসড়কের ডাইনে উন্নয়ন, বামে উন্নয়ন। ডিজে ব্যাডের আইপডের গান চেন্জ হয়। হাই ভল্যুয়ুমে বাজতে থাকে, গর্জে ওঠো আবারও/জয় বাংলা বলে আগে বাড়ো।
ডিজে ব্যাডও এই গানের প্রেরণা নিয়ে জয় বাংলা বলে আগে বাড়তে থাকে। জ্যামে বসে থাকা বাসের যাত্রীরা ডিজে ব্যাডের দিকে তাকিয়ে খুব হাসতেছে। ডিজে ব্যাডের এতে কিছুই যায় আসে না। কারণ সে উন্নয়নের মহাসড়ক ধরে জয় বাংলা বলে আগে বাড়তেছে।
ডিজে ব্যাড এরই মধ্যে পৌঁছে গেছে আসাদ এভিনিউ। সনির শোরুমে বিশাল সাইজের কতগুলা টিভি চলছেতে একসাথে। টিভিতে দেখা যায়, নারায়ণগঞ্জে ভাই-বোনের মান অভিমান চলছে। বোন ভাইয়ের খেলনা বাজার ভেঙে দিয়েছে। ভাই তাই রেগে গিয়ে বোনের দিকে ইট ছুঁড়ে মেরেছে। ভাইয়ের বন্ধু নিয়াজুল খেলনা পিস্তল দিয়ে ভয় দেখাতে গিয় উলটো মার খাচ্ছে।
ডিজে ব্যাড আবার এগিয়ে যেতে থাকে। এত হাঁটাহাঁটির কারণে ডিজে ব্যাডের হজম প্রক্রিয়ার গতি বেড়ে গেছে কয়েকগুণ। নিউ স্পেশাল বোম্বাই হাজীর বিরিয়ানি পেটের ভেতর নিম্নচাপ তৈরি করছে ব্যাপক গতিতে।
ডিজে ব্যাড পাগলের মতো টয়লেট খোঁজে। কোথাও পায় না। কাছের পাবলিক টয়লেটের দূরত্ব ফার্মগেট অথবা মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ড। ডিজে ব্যাড পাগলের মতো ছুটতে থাকে। স্লো মোশনে ডিজে ব্যাডের পাশ দিয়ে বাস ছুটে যাচ্ছে। হঠাৎ করেই ডিজে ব্যাড থেমে যায় উন্নয়নের মহা সড়কের মাঝখানে। চারপাশের কোনও শব্দই তার কানে আসে না। তার চোখ মুখ কুঁচকে আসে। দূর থেকে ভেসে আসা কিছু হর্নি গাড়ির হর্ণ ছাড়া সবকিছুই প্রায় নিস্তব্ধ। এরই মাঝে আবারও পকেটে চাপ লেগে আইপডে বেজে ওঠে, গর্জে ওঠো আবারও/জয় বাংলা বলে আগে বাড়ো।
ডিজে ব্যাডও বলে ওঠে, জয় বাংলা। আর সাথেসাথেই চারপাশের উন্নয়নের খুশবুর সাথে নিউ স্পেশাল বোম্বাই হাজীর বিরিয়ানির গন্ধ মিলেমিশে একাকার...

ধারাবাহিক