করোনা আপডেট
আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৫৩১৩২৬ ৪৭৫৮৯৯ ৮৮০৩
বিশ্বব্যাপী ৯৮৭৫০১০৩ ৭০৯৩৬৭৫০ ২১১৬৪৩৮

বিবি সাজদার গদ্য ‘সম্পর্কের সীমারেখা’

প্রকাশিত : জানুয়ারি ১৪, ২০২১

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম আপনার প্রচুর সময় নষ্ট করবে যদি আপনি সতর্ক না হন। আপনি লিঙ্গীয় সম্পর্কে জড়াতে পারেন এমন মানুষের সাথে যে আপনার আদৌ যোগ্যই নয়।

রেস্টুরেন্ট, শপিংমল, কফি হাউজ বা কোনো পর্যটন কেন্দ্রে তোলা ছবি ও চকচকে জামাকাপড় দেখে আপনি ভাবতেই পারেন যে, মানুষটি সত্যিই গর্জিয়াস। একইভাবে নারীদের ক্ষেত্রে যেটা হয়— ধার করা গহনা, শাড়ি ও বেড়াতে যাবার সময়কার ছবি দেখে আপনি ভাবতে পারেন, নারীটি সম্ভ্রান্ত। একইসাথে প্রচুর মেকাপ করা মুখমণ্ডল দেখে আপনার মনে হতে পারে ফেইরি।

সাধারণ ছেলেমেয়েরা এই ধরনের প্রতারণার শিকার হয়। যারা একেবারে সাধারণ ও লোভী। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম নিঃসন্দেহে মনের ভাব প্রকাশের একটি মিডিয়া হিসেবে কাজ করে। তাই বলে এখানে কুৎসা, গুজব ও নিন্দামন্দ চর্চা হয় না— এমন না। অসৎ নারী-পুরুষ প্রেমের ফাঁদে ফেলে অন্যদের সাথে প্রতারণা বা ব্লাকমেইল করে হাতিয়ে নেয় মোটা অঙ্কের অর্থ।

আপনি যদি মানসিকভাবে দৃঢ় ও আত্মপ্রত্যয়ী না হন তাহলে ফেসবুকীয় সম্পর্ক অবশ্যই এড়িয়ে চলবেন। আর নিজের সময় বাঁচাতে অযথা ইনবক্সের গল্পসল্প তো অবশ্যই বাদ দেবেন। আপনার জন্য স্বচ্ছ একটি জায়গা হতে পারে কমেন্ট বক্স। এখানে আপনি বা অন্যরা যা লেখে সবাই তা দেখতে পারে। একটা খবর দেখেছিলাম ফেসবুকে, ফেসবুকীয় বন্ধুত্বের একমাস পূর্তি উপলক্ষ্যে কিশোরীকে ডেকে নিয়ে গণধর্ষণ ও হত্যা। (চিটাগাং)।

এছাড়া অহরহ নারী-পুরুষ বিষয়ক প্রতারণার খবর পাওয়া যায়। সেপিওসেক্সুয়ালরা যে ধরনের প্রতারণায় পড়েন এখানে তা হলো, অন্যের লেখা চুরি করে কেউ চালিয়ে দেয় নিজের নামে। বা ঘিলুবিহীন কেউ একজন যখন কিছু বিজ্ঞের মতো বলা শুরু করে। এক্ষেত্রে সেপিওসেক্সুয়ালরা ওই ধরনের নারী বা পুরুষের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে যেতে পারেন। এখানে দীর্ঘক্ষণের আলাপচারিতা প্রয়োজন যাতে করে আসল স্বরূপ প্রকাশ হতে পারে।

আপনি যদি এরকম মানুষ হন তবে সময় নিয়ে পছন্দের ব্যক্তির সাথে কথা বলুন। এতে করে আপনার পছন্দ সঠিক নাকি ভুল তা বুঝতে পারবেন। ফেসবুকে কিছু পিশাচ প্রকৃতির লোক লোকের হিউম্যানিটিকে পুঁজি করে প্রতারণা করে। জনসাধারণের জন্য কাজ করে বা নিজে খুব অসহায় অবস্থায় আছে বলে টাকা সাহায্য চায় বা ধার চায়। এরা প্রতারক। এড়িয়ে চলুন। আমি নিজেও এরকম প্রতারণার শিকার বহুবার হয়েছি। প্রচুর ধার দিয়ে একপয়সাও ফেরত পাইনি।

ফেসবুক প্রেম বা পছন্দের সূত্র ধরে বহু কিশোরী ও তরুণী রেপড হয়েছে। এমন সম্পর্ক গড়ে উঠলে নারীদের উচিত জনাকীর্ণ স্থানে দেখা করতে যাওয়া। কোনো আবদ্ধ রুম বা হোটেলে গেলে সাথে কয়েকজন সঙ্গী নিয়ে যাওয়া উচিত, যাতে করে অন্যের লালসার শিকার না হন। সম্পর্কে স্ট্যাবিলিটি আসলে তখন আপনি প্রেমিকের সাথে কোথায় যাবেন, সেটা স্থির করুন।