করোনা আপডেট
আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ৮২৪৪৮৬ ৭৬৪০২৪ ১৩০৭১
বিশ্বব্যাপী ১৭৬১০৪১৫৬ ১৫৯৬৯৯০৯৬ ৩৮০২১৬৫

উকিল মুন্সীর পাঁচটি গান

প্রকাশিত : জুন ১১, ২০২১

বাউল সাধক উকিল মুন্সীর আজ জন্মদিন। নেত্রকোণার খালিয়াজুড়ির নূরপুর বোয়ালীগ্রামে ১৮৮৫ সালের ১১ জুন তার জন্ম। ছাড়পত্রের পক্ষ থেকে তার প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য হিশেবে তার লেখা পাঁচটি গান পুনর্মুদ্রণ করা হলো:

এক.
সুজন বন্ধু রে আরে ও বন্ধু কোনবা দেশে থাকো
এই দাসীরে কান্দাইয়া রে
কোন দাসীর মন রাখো সুজন বন্ধু রে।

প্রেম শিখাইয়া চইলা গেলা রে আরে ও বন্ধু
লাগাইয়া মমতা
বুকের ওপর দিয়া গেলা রে
বিনা কাষ্ঠের চিতা সুজন বন্ধু রে।

জৈষ্ঠ মাসে টলমল করে আরে ও বন্ধু
কচুপাতার পানি
সেই মতন ঝরিয়া পড়ে রে
নারীর যৌবনখানি সুজন বন্ধু রে।

উজান বাঁকে থাকো বন্ধু রে আরে ও বন্ধু
ভাটির দেশে থানা
চোখের দেখা মুখের হাসি রে
কে করেছে মানা সুজন বন্ধু রে।

নতুন ঝাড়ের বাঁশ কাটিয়া রে আরে ও বন্ধু
গাঙে দিলাম বানা
রাইতে আইও রাইতে যাইও রে
দিনে করি মানা সুজন বন্ধু রে।

কোন কলিমায় ডাকবো তোমায় রে আরে ও বন্ধু
কেমনে হবে সুখী
বিরহী উকিলের এ ভাবনায় রে
অন্ধ হইল আঁখি সুজন বন্ধু রে।

দুই.
আরে ও আষাঢ়িয়া পানি
কার্তিক মাসে থাকবে না তোর সাধের জোয়ানি।

ঘাটে ঘাটে বান্ধা আছে সুন্দর তরণী
সুন্দর বউ আসে ঘাটে শুনে খলখলানি।

শ্রাবণ সংক্রান্তি মাসে লাগে নাও দৌড়ানি
লাছাইতে লাছাইতে ভাঙে সুন্দর নাওখানি।

কেউ হারে কেউ জিতে কেউ খায় মুণ্ডা-চিনি
কেউর নাও যায় ভাঙিয়া কেউর মাথা ঘুরানি।

মনউল্লাসে কতজনায় নাও দিয়া যায় বেড়ানি
উকিলের ভাঙা নাও, সেচিলেও না ফুরায় পানি।

তিন.
উজানী নাইয়ারে, নাও বাইয়া যাও ভরা গাঙে দিয়া
আমার বন্ধুর খবর জানলে, কইয়া যাও ভিরাইয়া রে।

কোথা হতে এলে তুমি, থাকো কোন বা দেশ
কহিতে পার নি আমার বন্ধুয়ার উদ্দেশ।
খবর যদি জানরে নাইয়া কইয়া যাও ভিরাইয়া রে।।

আমার বাড়ির সামনে দিয়া ভরা সুরমাই নদী
জল তুলিয়া স্নান করাইতাম আবার আসতো যদি
মিষ্ট মিষ্ট ফল রেখেছি বন্ধুয়ার লাগিয়া রে।।

আমি করি যার ভরসা সে পুড়ায় কার আশ
চোখের পানি দূর হলো না কেবল বার মাস।
মিছা কলংকিনী উকিল, জনমের লাগিয়া রে।।

চার.
আমি মইলে কি লাভ তোর বন্ধুয়ারে
আমি মইলে কি লাভ তোর।

বন্ধুরে মইলে যদি হও সুখী
প্রাণ নিতে রাইখ না বাকি
পাখি উড়ে শূণ্য হোক পিঞ্জর।।

দেহ পিঞ্জর হলে শূন্য
তোমায় লোকে বলুক ধন্য
এই মরণের করি না আর ডর।।

তোর সনে করে পিরিতি
আঁধার হলো চোখের জ্যোতি
ভাবে বুঝি উকিল তোমার পর।।

পাঁচ.
ইয়া রাফিকুল আল, ইয়া হাবিবুল্লাহ
ইয়া শাফিউল মুজনবীন।
কাহার নামে বসবেন খোদা
তুমি হবে আলামীন।

তোমার গৌরব, তোমার মন
জানেন আল্লাহপাক সোবাহান।
তোমার আশেক সারা জাহান
ফেরেশতা আসমান জমিন।।

হাশরের মাঠে এলে জমা
সূর্যের তেজে জমি হবে তামা
সেজদায় পড়ে চাইবে ক্ষমা
বলবেন আমি উম্মতের জামিন।।

সাফায়েতের আশা রাখো
নবীর প্রেমে মশগুল থাকো
উকিল শুধু পাইল দুঃখ
নাই বুকে এশকের চিন্।।