যন্ত্রমানব

মুনির হোসেন

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯

কিছু দিন থেকেই একটা চিন্তা মাথার মধ্যে ঘূরপাক খাচ্ছে, আমরা আসলে যান্ত্রিক হয়ে যাচ্ছি। আবেগ অনুভূতির কোনো বালাই নেই। না আছে মায়া, না আছে মমতা। কী রকম যেন ভোঁতা হয়ে যাচ্ছে হৃদয়ের মঙ্গলময় অনুভূতিগুলো। কেমন যেন দমবন্ধ করা যান্ত্রিক পরিবেশ। সবাই আমরা ছুটে চলছি অবিরাম উদ্দেশ্যহীন ভাবে।

এ প্রসঙ্গে অনেকদিন আগে পড়া এক বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনির কথা চকিত মনে পড়ে গেল। সেই  গল্পের কিছু সারসংক্ষেপ নিচে তুলে ধরা হলো:

এক দূর ভবিষ্যতের কাহিনি। নায়ক এক লেভেল ৬, সাইব`গ রোবোট যা কিনা অনেকটাই মানুষের মতো। লিথিয়াম ধাতুর কংকাল কাঠামোর উপর রক্ত মাংসের শরীর। মস্তিষ্কের স্নায়ুকোষে বিশেষ সার্কিট বসানো, যেখান থেকে তড়িৎ চুম্বকীয় তরঙ্গের মাধ্যমে মানবীয় অনুভূতির প্রকাশ ঘটে। লেভেল ৬ এর জন্মের বহু পরে তার সাথে এক মেয়ের পরিচয় ঘটে, যে কিনা সত্যিকার মানুষ। মেয়ের নাম চিনকু। তারা একসাথে স্পেস এয়ারক্রাফট কোম্পানিতে চাকরি করে।

তাদের মধ্যে বন্ধুতা ক্রমশ বাড়তে থাকে। লেভেল ৬ হঠাৎ করেই অনুভব করে, চিনকুর জন্য সে উদগ্রীব হয়ে অপেক্ষা করে। চিনকু পাশে থাকলে তার যে এক ভালো লাগার অনুভূতি হয়, যা তার কাছে সম্পূর্ণ অচেনা। চিনকুর সাথে একদিন দেখা না হলে, কী এক অজানা যন্ত্রণা তাকে গ্রাস করে। লেভেল ৬ চিনকুর কাছ থেকে কিছু একটা আশা করে, যা কিনা তার অজানা। এই সমস্যার সমাধান কে দেবে। কিন্তু চিনকুর অতি নির্লিপ্ততা, অনুভূতিহীন আচরণ তার বুকের ভেতর কেমন যেন যন্ত্রণা তৈরি করে। তার গলা দিয়ে কী যেন একটা বের হয়ে আসতে চায়।

লেভেল ৬ ভাবে, চিনকু কত ভালো মেয়ে! প্রতিবছর তার জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতে ভুল করে না। কোনো দিন কোথাও খেতে গেলে এক মিনিট দেরি করে না। তারপরও কোথাও যেন কিছু একটা নেই। আজ চিনকু অন্য এক স্পেস কোম্পানিতে চলে যাবে। আগামী কয়েক বছর আর তাদের দেখা হবে না। লেভেল ৬ এক তোড়া হাইব্রিড পলিমার ফুল নিয়ে চিনকুর জন্য অপেক্ষা করে। এক ঘণ্টা পেরিয়ে যায়। সে ইন্টারনেট থেকে জানতে পেরেছে, গত শতাব্দীর পুরুষরা তাদের ভালোবাসার মানুষের জন্য এভাবেই অপেক্ষা করতো। লেভেল ৬ দেখে, ওই যে চিনকু আসছে একদম ঘড়ির কাঁটার সাথে তাল মিলিয়ে। চিনকু হাসছে, কিন্ত লেভেল ৬ ওর চোখের গভীরে তাকিয়ে কিছুই খুঁজে পেল না। একদম শূন্য।

লেভেল ৬ ভাবে, আসলে চিনকু খুব ভালো মেয়ে। এ সময়ের মানুষেরা ভালবাসা জানে না, কষ্ট পেতে জানে না। পঞ্চাশ বছর আগে যখন ওকে যখন তৈরি করা হয়েছিল, কেন যে ওর সৃষ্টিকারক ওর মাঝে এসব মানবিক অনুভূতি দিয়েছিল! লেভেল ৬ আচমকা অনুভব করলো, ওর চোখ দিয়ে জলের মতো কী যেন বের হচ্ছে! এটা যে হৃদয় নিংড়ানো কান্না, সেটা লেভেল ৬ জানে না। আমরা আসলে সেই সময়ের দিকেই যাচ্ছি।

ধারাবাহিক