করোনা আপডেট
আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ ১৫৯৬৭৯ ৭০৭২১ ১৯৯৭
বিশ্বব্যাপী ১১২০৫০০৫ ৬৩৫৪২৬৯ ৫২৯৩৮০

আবু তাহের সরফরাজের তিনটি দরবেশি কিস্‌সা

প্রকাশিত : জুলাই ০১, ২০২০

ভোগ ও উপভোগ

বড়পির আব্দুল কাদের জিলানি তখন যুবক। পথ চলতে চলতে একদিন হঠাৎ থমকে দাঁড়ালেন। সৌন্দর্যের বিস্ময়কর ছটায় তিনি হতচকিত। শিরশির কাঁপুনি টের পেলেন রক্তের কোষে কোষে।

রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে আছে এক যুবতী। মুচকি হাসি তার ঠোঁটে। হাসি ছড়ানো এই ঠোঁটের জীবন্তদৃশ্য হৃদয় চিরে দেয়ার মতো। বড়পির তাই মাথা নিচু করে রাস্তা পেরিয়ে গেলেন।

মসজিদে এসে দেখলেন, পথে দেখা যুবতী মসজিদের আবর্জনা পরিষ্কার করছে। দ্বিতীয়বার আর তার দিকে তাকালেন না বড়পির। নামাজে দাঁড়িয়ে গেলেন। নামাজ শেষ করে তার আবাসস্থল মাদ্রাসাকক্ষে এলেন। দেখলেন, যুবতী মাদ্রাসার বারান্দা ঝাঁট দিচ্ছে। বড়পির জিগেশ করলেন, হে সুন্দরের রানি, তুমি কে?
যুবতী বলল, মায়াবিনী।
বড়পির বললেন, মায়াবিনী তো বটেই। সুন্দরের আরেক নামই যে মায়া। কিন্তু আমি জানতে চাচ্ছি তোমার সত্যিকারের পরিচয়। বারবার এভাবে আমাকে প্রলুব্ধ করছ কেন?
মায়াবিনী বলল, আমি পৃথিবী। পৃথিবীর মায়াময় সৌন্দর্যে আপনাকে মুগ্ধ করতে চেষ্টা করছি।
বড়পির বললেন, তোমার চেষ্টা ব্যর্থ হবে। কেননা, মুগ্ধতার পথ আমি পেরিয়ে এসেছি। বেহেস্ত থেকে বিতাড়িত হওয়ার সময় ইবলিস আল্লাহকে বলেছিল, আদম সন্তানকে আমি পৃথিবীর সৌন্দর্যের দিকে আকৃষ্ট করে বিপদগামী করব।
থামলেন বড়পির। বললেন, সৌন্দর্য তবে কি পাপ? না হে, তা নয়। জগৎ-সংসারে মানুষ বেঁচেই থাকে কোনো না কোনো সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে। এ মুগ্ধতা না থাকলে মানুষের অনুভূতির জগৎ ও চেতনা শূন্য হয়ে যায়। শূন্য এই অবস্থানে যে মানুষ চলে যায়, সে পরম সত্তার সাথে লীন হয়ে যায়। কেননা, ততদিনে সে জেনে যায়, জগতের প্রতিটি বস্তুই সুন্দর। আর প্রতিটি সুন্দরই এক একটি মায়ার খেলা। এ খেলায় জয়-পরাজয় আছে। যন্ত্রণা আছে। আবার আনন্দের শিহরণও আছে। তবে শেষমেষ যা পাওয়া যায় তা ব্যর্থতার অবসাদ। সারা দেহে ফুটে থাকে ব্যর্থতার ক্ষত-বিক্ষত চিহ্ন। এ যন্ত্রণা মানুষকে কয়েক টুকরো করে ভেঙে ফ্যালে। আমি মুগ্ধ আছি আমার অন্তর্জগতের সৌন্দর্যে। আর তাই আমি সুখি।

মায়াবিনী চুপচাপ শুনছিল বড়পিরের কথা। এবার জিগেশ করল, অন্তর্জগতেই যদি মুগ্ধ আপনি, তবে বারবার আমাকে দেখে শিহরিত হলেন কেন?
বড়পির জবাব দিলেন, মানুষ যে! তবে আমি ভোগ করি না। উপভোগ করি। ভোগের আনন্দ ভোগের মুহূর্তেই শেষ হয়ে যায়। আর উপভোগের আনন্দ থাকে আমৃত্যু।

পাজরের হাড়

আবু হাশেম কসাইখানার সামনে দিয়ে যাচ্ছেন। কসাই বলল, ভালো মাংস আছে, নিয়ে যান হুজুর।
আবু হাশেম দাঁড়িয়ে বললেন, আমার কাছে মাংস কেনার মতো টাকা নেই।
কসাই বলল, নিয়ে যান, টাকা পরে দিলেও চলবে। আপনি আমাকে ঠকাবেন না, সে আমি জানি।
হাশেম বললেন, এরচে ভালো নফসের কাছ থেকে কিছু সময় নেয়া।
কসাই এবার বলল, নফসের কাছ থেকে সময় নিতে নিতেই তো এখন আপনার পাজরের হাড় গোনা যায়।
হাসলেন আবু হাশিম। বললেন, তবু যে মাংস দেহে এখনও আছে, কবরের কীটগুলোর তাতে অনেকদিন চলে যাবে।

মানুষের চরিত্র আগে থেকেই লিখিত

আখরোট কিনতে গেছেন আবুল আব্বাস সাইয়ারি। দোকানি তাকে দেখেই কর্মচারীকে বলল, হুজুরকে বেছে বেছে ভালো আখরোট দাও। এরপর সাইয়ারিকে জিগেশ করল, ক’টা নেবেন হুজুর?
সাইয়ারি বললেন, সব খদ্দেরকেই কি আপনি বেছে বেছে ভালোগুলো দেন? দোকানি বলল, না হুজুর। আপনি ভালো মানুষ, তাই আপনাকেই দিচ্ছি।
সাইয়ারি বললেন, আমি আমার ভালো মানুষকে আখরোটের বিনিময়ে বেচতে রাজি নই। কেননা এখন আমি তা বেচলে আখেরাতে কি দিয়ে বেহেস্ত কিনব? যে ক’টা আখরোট আমি নিতে চেয়েছিলাম, এই নাও তার পয়সা।

এই বলে তিনি চলে এলেন। কিছু দূর আসার পর পেছন ফিরে দেখলেন, এক লোক তার পিছু পিছু হেঁটে আসছে। তিনি দাঁড়ালেন। লোকটি এসে তার সামনে দাঁড়িয়ে সালাম জানালো। সালামের জবাব দিলেন সাইয়ারি।
লোকটি বললেন, আমি এই প্রদেশের শাসনকর্তা। আপনি আমাকে চেনেন না, কিন্তু আমি আপনাকে চিনি। আর আখরোটের দোকানে ঘটে যাওয়া ঘটনা আমার সামনেই ঘটে। যদিও আপনি আমাকে দেখেননি, কিন্তু আমি সেখানে ছিলাম।
সাইয়ারি বললেন, আপনি কি আমাকে কিছু বলতে চান?
শাসনকর্তা বললেন, জি।
সাইয়ারি বললেন, তবে বলুন।
শাসনকর্তা বললেন, জ্ঞান কি?
সাইয়ারি জবাব দিলেন, দেখে-শুনে-পড়ে জগৎ-সংসার বিষয়ে যে ধারণা মানুষ অর্জন করে, তা-ই জ্ঞান।
শাসনকর্তা এবার জিগেশ করলেন, পরম জ্ঞান কি?
সাইয়ারি জবাব দিলেন, জ্ঞানের স্তূপ ঝেড়ে ফেলে দিয়ে নির্ভার হবার যে আনন্দ, তাই পরম জ্ঞান।
একটু সময় চুপ থেকে শাসনকর্তা বললেন, জগতে আপনি কি আশা করেন?
সাইয়ারি জবাব দিলেন, যে আশা আল্লাহ আগে থেকেই পূরণ কওে রেখেছেন, তা-ই।
এবারও কিছু সময় চুপ করে থেকে শাসনকর্তা বললেন, আপনি কি নিশ্চিত, জগৎ-সংসারে প্রতিটি মানুষের চিত্রনাট্য আগে থেকেই লিখিত?
সাইয়ারি জবাব দিলেন, লাওহে মাহফুজে আমাদের যার যে চরিত্র লেখা রয়েছে, তার থেকে মুক্তির কোনো উপায় আমার জানা নেই। অথচ প্রতিটি মানুষই তার লিখিত চরিত্র থেকে মুক্তি পেতে চায়।
থামলেন সাইয়ারি। দেখলেন, মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে আছেন শাসনকর্তা। বোঝাই যাচ্ছে, তার মনোযোগ দক্ষ তীরন্দাজের মতো অব্যর্থ।
শাসনকর্তার এই মনোযোগে খুশি হলেন সাইয়ারি। জ্ঞান এখনও তার পাত্র পূর্ণ করতে পারেনি। পাত্র পূর্ণ হয়ে গেলে কেউ আর জ্ঞানের কথায় মনোযোগ দেয় না।
সাইয়ারি এবার বললেন, কোরআনের আয়াত ছাড়া অন্য কিছু দিয়ে যদি নামাজ পড়া হতো, তবে তা এই কবিতা। এরপর সাইয়ারি আবৃত্তি করলেন,
জীবনে বেঁচে আছি, একটাই আশা
মুক্ত কোনো মানুষ যদি দেখতে পাই!

কিস্‌সাসূত্র: আল্লামা ফরিদ উদ্দীন আত্তার রচিত ‘তাজকেরাতুল আউলিয়া’