আশিক আকবরের কবিতাগুচ্ছ

প্রকাশিত : অক্টোবর ০৫, ২০১৯

ঘরে ফেরা বিপ্লবীর প্রতি

দেখাই মিলছে না হে,
জন্ম দিনে উঁকি দিয়া মৃত্যুর দিকেই যাচ্ছেন!
কথা ছিল স্থানে স্থানে আগুন জ্বালাবার।
কাঠি ও ম্যাচ, পাথর ও পাথর পাশাপাশি এখনো।
ঠুকবার হাতটি ধরাচ্ছে গ্যাস লাইটে আরামছে সিগ্রেট।

ব্যাক্তি জীবনে
ফুলে ফলে
দুধে দইয়ে
মধু ও মক্ষিকায় ভালো আছেন তো প্রাক্তন কমরেড হে!

আমাদের বাড়ানো হাত কিন্তু এখনো আপনার জন্য কাঁপে
কাঁপছে

প্রশ্ন

প্রশ্নটি আছে বলেই আগানো যাচ্ছে
পায়ে পা ফেলবার পরও আরেক পা ফেলা যাচ্ছে
বলা যাচ্ছে বাচ্চা সিংহদের লাফিয়ে ওঠে
সূর্য খাবার সত্যকাহিনি

দেশ

একটি সকাল আমি তোমাকে দিলাম
একটি দুপুর আমি তোমাকে দিলাম
শিস দিয়ে উড়ে যাওয়া দোয়েলটিকে আমি গুলি করিনি
কিন্তু সে মরে যাচ্ছে
কিন্তু সে মাছরাঙ্গা হয়ে যাচ্ছে
আর আমার দেশটি
পড়শি দেশের থাবায় রঙ পাল্টাতে পাল্টাতে
পড়শিদের হয়ে যাচ্ছে
ও আমার দেশ
তুমি আমারই হও না। আমারই থাকো না।

হেমন্ত আসছে

হেমন্ত আসছে
সবুজ পাতাগুলো ঝরে পড়বার প্রতিজ্ঞা করছে
শীতের তর সইতে না পারা পরকীয়া দিচ্ছে কুয়াশার উম উম চিঠি
ধানের নিবিড় সবুজ সবুজ মাঠ দিচ্ছে অগ্রহায়ণের ইশারা
ও কৃষক
কাস্তে দাও শান হে
কমরেড ও, হেমন্ত মাঠের উদাসীন কবির কান ফাটানোর করো আয়োজন

সাদামাটা কবিতা

ভালো লাগছে না। ভালো লাগছে না। ভালো লাগছে না।
আমি ভালোকে খুন করবো।
লাগাকে দূর বনবাসে পাঠাবো।

শে ফোন না ধরলে, আছাড় দেব বিরক্তিকে। রাগকে দেব গোরস্তানে কবর।
তবু তাকে ভালোবাসবো। ভালোবাসবো। ভালোবাসবো।
ভালোবাসার মধ্যে আমি পেয়েছি সর্বভূতে মিশবার অপ্রকাশ্য অনুভব। চরম তৃপ্ত মুহূর্ত।

আমাকে ভালোবাসতে দাও। ভালোবাসতে দাও। ভালোবাসতে দাও। আরো ভালোবাসতে দাও।

শহিদ মিনার

মিনার
একটা শহিদ মিনার
বানানো কি যায়

বিএসএফ
ভারতীয় বিএসএফ
করে
যাদের হত্যা করে
তাদের পাশে
তার পাশে কবর দিতাম

রাষ্ট্র

ও রাষ্ট্র
অন্তত এই আর্জিটি
শোনো
শোনো আমার

স্বাধীনতার বলিদের অন্তত মনে রাখতে দাও

ধারাবাহিক